লুনা মাগির বস্ত্র হরনের বাড়া ঠাটানো চটি গল্প (শেষ পর্ব)

পরিচয় পরব সেশ, ওর মনের মাঝে শুধুই লুনার নগ্ন দেহ টা কেমন হবে তা ভাসছে।
ক্লান্ত শরির আবার তাজা হয়ে উঠল ওর।
রানা তার ক্লান্ত দেহ নিয়ে অফিস ছাড়ল। বিসিআই এর নিজ্বস্য গ্যারাজ থেকে
ওর প্রাদো গাড়ি টা বের করে গুলশানের বাসায় চলে এল। নিজের রুমে ঢুকেই
একটা জ়নি ওয়াকার এর বোতোল খুলে দু ঢোক নিজ্jলা হুইস্কি গলায় ঢালল।
তারপর কাপড় চোপড় খুলে বাথরুমে গেল, ওর এখন একটা গরম শাওয়ার দরকার।
বাথটাবের উষ্ম পানি ধীরে ধীরে অবসাদ ধুয়ে নিচ্ছে, আর হুইস্কির হাল্কা
নেষা যেন জাদু করল ওকে। মনে পড়ে গেল কিছু স্ম্jতি; খায়রুল কবীর-
প্রতিভাবান বাপের গুনধর বেটা, বাপ কবীর চৌধুরি যা করেনি, ও তা করে
দেখিয়েছে। ওদের বিগত সংঘাতে রানা কবীরের ভুমিকম্প মেশিন ধ্বংশ করে দিয়ে
বাংলাদেশ কে বাচিয়ে ছিল। শয়তানটা পালানর আগে হোটেল রুমে ওর বান্ধবি
রিমা কে রেপ করে, তারপর মাথায় গুলি করে মেরে ফেলেছিল। রিনাকে হারিয়ে
রানা প্রায় ১মাস পাগোল প্রায় হয়ে ছিল। চৌধুরী যত খারাপ ছিল না কেন, তার
চরিত্রে মেয়ে মানুষ নিয়ে কনো বাড়াবাড়ি ছিলনা, খাইরুল হল এ ব্যাপারে
বাপের ঊল্টা। Luna Magir Golpo Choti Bangla.
আস্তে আস্তে ও বাথটাব থেকে উঠে টাওয়েল পেচিয়ে রুমে আসল, রুমের মাঝে
স্যানাল সেভেন এর মাতাল করা গন্ধ ওকে সোহানার কথা মনে করে দিল। কিচেনের
টুং টাং আওয়াজে বুঝল উনি হাজির।
হাতে দুকাপ কফি নিয়ে সোহানা ওর রুমে ঢুকল। ওকে টাওয়েলে দেখে ওর মুখে
দুষ্টু হাসি ফুটে উঠল।
কি ব্যাপার জনাব, একে বারে রেডি হয়ে আছ দেখি।
তুমি তো আমাকে কাপড় খোলার টাইম দিতে চাওনা তাই… – রানার জবাব।
আহ, কতদিন পর তোমার বুক টা দেখছি, আমার এখন তোমাকে কাচা খেয়ে ফেলতে ইচ্ছা
হচ্ছে, আস এ দিকে… সোহানার হুকুম।
শেষ বিকালের সোনারঙা রোদের আলোয় সোহানার মসৃন গ্রীবা, আর পরনের গোলাপি
শাড়িতে ওকে একটা দেবীর মত লাগছে। সোহানার নাকের উপর এক ফোটা ঘাম, রানাকে
পাগল করে তুললো।
নোড়োনা প্লিজ, বলে রানা এগিয়ে এল। তারপর সোহানার নাকের উপর ঘামের ফোঁটায়
ঠোট লাগাল। সোহানার পুরো দেহ কেপে উঠল, আবেসে
ওর চোখ বন্ধ হয়ে গেল। ধীরে ধীরে রানার নিষ্ঠুর ঠোট সোহানার গোলাপি ঠোটের উপর..
সোহানা রানার মূখে নিজের জ্বীহবা ঢুকিয়ে দিল। তার পর সুরু হোল
দীর্ঘউপেক্ষিত চুম্বন পালা, যেন শেষ নাই, নিস্বাসে ঝড় উঠেছে দুজনার।
প্রায় ৫ মিনিট পর দুজনের মুখ আলাদা হল। রানা সোহানার কানের লতিতে আলতো
কামড় দিল, ওর গ্রীবাতে কামড়ানো শুরু করল। সোহানাও কম যায় না, রানার
রোমশ বুকে আলত জোরে কামড়াতে লাগলো ও। এক টানে খুলে ফেললো রানার কোমরের
টাওয়েল। রানার ৮” বাবু সাহেব তীর তীর করছে, দেরিনা করে ওটাকে ধরে মুখের
মাঝে নিল সোহানা। তারপর ওটাকে ললিপপের মত চুসতে লাগলো, বাবু সাহেব
ভদ্রতা ছেড়ে আরো মোটা ও লম্বা হয়ে গেল। সোহানা চুসতেই থাকলো এভাবে…
রানার প্রায় হয়ে আসছে, ও চিৎকার করে উঠলো আবেশে। সোহানার কোন বিকার হল
না তাতে, রানা আহ করে মাল ঢেলে দিল সোহানার মুখে। সোহানা ক্ষুদা’থর মতো
পুরো মধু টুকু খেয়ে ফেলল।
রানা ওর শাড়ি খুলা আরম্ভ করল, কোন তাড়াহুড়া নাই এখন ওর। সোহানার বহু
দেখা দেহ ওর কাছে নতুন লাগছে, ওর কিসমিস দানার মত নিপল টা দুই দাতের
ফাকে নিয়ে হাল্কা কামড় দিল ও। সোহানা যেন পাগল হয় গেল। রানার চুলে বিলি
কাটা শুরু করল ও।Luna Magir Golpo Choti New
ধীরে ধীরে রানা নিচে নামল, সোহানার ক্লিন শেভ পুশীতে আদর করা শুরু করল।
সোহানার গোলাপি ক্লিট পুশী থেকে একটু বের হয়ে আছে। রানা তাতে কামড় দিল।
সোহানা রানার মাথা নিজের পুশীতে চেপে ধরল। রানা প্লিজ, আর ভিতরে চোশো…
আহ, আরও উমমমমম, ইসসসসসসসসসসসস বলে রানার মুখ ভিজিয়ে দিল সোহানা/।
রানার নিজের অবস্থা ও সুবিধার নয়। ওর ধোন টা কুতুব মিনার কেও হার
মানাবে। দেরি না করে ও সোহানার পুশিতে ধোন ঢুকাল। হাল্কা একটু পুশ,
সোহানার ভিতরে একটু করে প্রবেশ। সোহানা কামসুখে খাবি খেতে লাগল। এবার
রানা একটা জোরে পুশ করতেই বাবু সাহেব পুরোটাই ডুব দিল, শুরু হলো ওদের
দেয়া নেয়ার টাগ অফ ওয়ার। কামে উম্মত্ত দুই যন্ত্রের মত দুজন দুজনকে
পিষতে লাগলো। রুমের বাতাসে সোহানার তীব্র শীতকার যেন অপুরব এক সঙ্গিত
তৈরি করেছে। এক সময় থামলো ওদের দেহের ঝড়। দুজন দুজনকে বিলিয়ে দেবার
আনন্দে বিভোর হয়ে ঘুমিয়ে পড়লো ওরা। রাত নামলো ঢাকায়, নিস্তব্দ আকাশ এক
বুক চাদের আলো ছড়িয়ে শান্ত হলো।