জমিদারের মেয়েকে ধর্ষণ (৩য় পর্ব)

চোখে-মুখে প্রায় সত্যিকারের অনুসন্ধিত্সা নিয়ে বরেনবাবু এবার তন্নিষ্ঠার বামস্তনটি ব্লাউজের উপর দিয়ে জাঁকিয়ে ধরেন, তারপর সেটির সমস্ত নরম মাংস কচলে কচলে টিপতে শুরু করেন মুঠো পাকিয়ে পাকিয়ে… তারপর তিনি ওর ডানস্তনটি মুঠোয় চেপে পেষণ করেন, এইভাবে তিনি তন্নিষ্ঠার ব্লাউজে টানটান খাড়া-খাড়া হয়ে থাকা দুখানা স্তন পালা করে মুঠো পাকিয়ে পাকিয়ে চটকাতে থাকেন|
-“উমমমম! উপ্প্ম,..হমম কম্ম!” তন্নিষ্ঠা প্রবল প্রতিবাদে মুখের বাঁধনে গুমরিয়ে উঠতে থাকে সমস্ত শরীর টানটান করে মুচড়ে মুচড়ে উঠতে থাকে বাঁধনমুক্তির প্রচেষ্টায় বারবার…
-“উফ, কি হলো| মেয়েটা বড় ছটফটে! শান্তি করে একটু অমন ঠাটানো বুকদুটো টিপতে দেবে না! কি হয়েছে!”
-“ম্প্প্ম! হ্ম্ম্খ্ক্ম!” তন্নিষ্ঠা প্রানপনে বলে ওঠে|
-“হিসি পেয়েছে?”
-“মহ্র্মম!!” তন্নিষ্ঠা প্রতিবাদ করে|
-“আচ্ছা আচ্ছা,” বরেনবাবু এবার অন্য হাতে ওর মুখের বাঁধন নাকের তলা থেকে নামাতে যান, কিন্তু পারেন না, তন্নিষ্ঠার মুখ খুবই শক্ত করে বাঁধা| অতএব তিনি ওর ঘাড়ের পেছন থেকে গিঁট খুলে বাঁধনটি খুলে ফেলেন|
-“আমার বুক থেকে হাত সরান এখনি!” মুখ খোলামাত্র গর্জে ওঠে তন্নিষ্ঠা| তার গলায় অবদমিত ক্রোধ|
-“কেন এমন সুন্দর দুটো নরম নরম বল!” সকৌতুকে বলে ওঠেন বরেনবাবু ওর স্তন টিপতে টিপতে|
-“না! ওদুটো আপনার নয়!” তন্নিষ্ঠার ফর্সা অপরূপ সুন্দর মুখ লাল হয়ে উঠেছে ক্রোধে, নিজের স্তনের এমন হেনস্থা যেন সহ্য করতে পারছে না সে আর|
-“উম্ম” মুচকি হেসে বরেনবাবু তাঁর কোলে অধিষ্ঠিতা বন্দিনী রূপসী মেয়েটির দিকে তাকান| কি সুন্দর ওর বসার ভঙ্গি! নরম ফর্সা কাঁধের উপর বিছিয়ে আছে ঝুঁটির ছড়িয়ে পড়া ঘন কালো চুল| কোমর থেকে শরীরটা অপূর্ব কমনীয় ভঙ্গিতে এমনভাবে বেঁকে আছে যে তা একটি এমন সুন্দরী অষ্টাদশী মেয়েকেই মানায়… দুটি একসাথে বাঁধা পা তাঁর ডান থাইয়ের উপর দিয়ে নেমেছে ভাঁজ ফেলে| মৃদু হাসেন তিনি| মেয়েটি বোধহয় এখন ভুলেই গেছে ওর নরম নিতম্বের মাঝে তাঁর শক্ত পুরুষাঙ্গটি ঢুকে আছে নিবিড়ভাবে| তিনি এবার আরো জোরে জোরে ওর স্তনদুটি টিপতে টিপতে হেসে দরাজ কন্ঠে বলেন “কি করবে বলত তুমি রূপসী, এই দেখো না কিভাবে আমি তোমার ডবকা বুকদুটো টিপছি! কি হাল করছি নরম পায়রাদুটোর চটকে চটকে, কিন্তু তোমার কিছুটি করার নেই!”তন্নিষ্ঠা ঠোঁটদুটো শক্ত করে টিপে ধরে থাকে রাগে| মুখ অন্যদিকে সরিয়ে রাখে সে| নিরুপায় ভাবে বরেনবাবুর খানদানি স্তনপীড়ন হজম করতে করতে|
-“হাহা, অথছ এই দুষ্টুদুটোকে ধরার জন্য, শুধু একটু দেখার জন্য কত ছেলের হৃদয় আকুলি বিকুলি করে,.. আর তুমি অহংকারী পরীর মতো এদুটো উঁচিয়ে ঘোরাফেরা করে পাড়াশুধ্ধু লোকের মাথা গরম করে দাও, এখন দেখো আমি তোমার জ্যেঠুমনি হয়ে কিভাবে টিপে টিপে দফারফা করছি এদুটোর! হাহাহা!” হাসতে থাকেন বরেনবাবু|
-“চুপ করুন! মেয়েদের বেঁধে রেখে বুক টিপতে খুব ভালোলাগে না আপনার!” মুখ ঝামটা দিয়ে ওঠে তন্নিষ্ঠা আহত হরিনীর মতো হাতের বাঁধনে নিষ্ফল মোচড় দিয়ে| Jomidarer Meye-3 New Bangla Choti Golpo.
-“ভীষণ! কিন্তু শুধু বুক কেন মামনি! তোমার কতকিছুই তো টিপবো আমি! শুধু বুকদুটো এমন পাগল করা খাড়া-খাড়া বলে,.. যাই হোক, ওদিকে মন দিও না উর্বশী! দেখো না কি সুন্দর গাছপালা বাইরে! মিষ্টি রোদ..” তন্নিষ্ঠার স্তন থাবায় পাকড়ে পাকড়ে টিপছেন বরেন পালা একটি একটি করে| যেন শায়েস্তা করছেন তাদের ঔদ্ধত্যকে| তন্নিষ্ঠা ঠোঁট কামড়ে পিঠ বাঁকিয়ে তুলে হাতের বাঁধনে টান দেয়| কিন্তু তা করতে গিয়ে স্তনদুটি আরও সুন্দর ভাবে উঁচিয়ে তুলে পরিবেশন করে ফেলে বরেনবাবুর দলনরত থাবার নিচে| বুকের উপর চোখা চোখা দুটি ধারালো অস্ত্রের মতই যেন প্রকট হয়ে ওঠে সেদুটি, শুধুমাত্র তাঁর থাবায় মর্দিত হবার জন্য| বরেনবাবুও উত্তেজিত হয়ে সেদুটি মুচড়ে মুচড়ে পরপর টিপে ধরেন ব্লাউজশুদ্ধ-
-“আঃ, লাগছে!” ঘাড় বেঁকিয়ে ওঠে তন্নিষ্ঠা|
-“উমমম” তন্নিষ্ঠার বুক থেকে হাত নামিয়ে ওর সমতল উদরে কিছুক্ষণ হাত ঘষেন| তারপর হাত চালান করে দেন ওর দুই উরুর ফাঁকে| স্কার্টের উপর দিয়েই সমস্ত তালু দিয়ে চেপে ধরেন ওর নরম, ফুলেল, উত্তপ্ত যোনিদেশ| সেখানকার নরম-গরম মাংসে আঙ্গুলগুলো দাবিয়ে দিয়ে তালু দিয়ে রগড়ে রগড়ে মাখতে থাকেন তিনি তন্নিষ্ঠার যোনি| চটকাতে থাকেন|
তন্নিষ্ঠা বুঝে গেছে প্রতিবাদে করে লাভ নেই| সে ঠোঁট টিপে রাগ ও লাঞ্ছনা হজম করতে করতে দেহ মোচড়ায়| বরেনবাবুর চটকাচটকিতে সে কোমর নাড়িয়ে উঠতে বাধ্য হচ্ছে এবং তার ফলে তার নিতম্বের ভাঁজে দৃঢ়ভাবে গাঁথা ওঁর লিঙ্গ রগড়ে ফেলতে বাধ্য হচ্ছে… অপদস্থতায় তার কর্ণমূল পর্যন্ত লাল হয়ে ওঠে| Jomidarer Meye-3 Choti Golpo.
স্কার্টের ভিতরে হাত ঢুকিয়ে দেন বরেনবাবু| নরম-পশম প্যান্টি আবৃত সমস্ত গনগনে উত্তপ্ত যোনিদেশ কচলান, আঙ্গুল চেপে ধরে তন্নিষ্ঠার যোনির খাত বরাবর নিচ থেকে উপরে আঁচড় কেটে তিনি অন্য হাতে ওর পিঠের বেড়ে চাপ দিয়ে বলে ওঠেন –
“তনি, তুমি এখনও স্কুলে পড়?”
তন্নিষ্ঠা অপমানক্লিষ্ট মুখ নিচু করে রাখে|
-“বলো না! বলো না!” তিনি ওর যোনির খাতে তর্জনী দিয়ে চাপ দিয়ে দিয়ে ঢোকাবার চেষ্টা করেন| প্যান্টির নরম কাপড়সহ তা কিছুটা তন্নিষ্ঠার যোনির ঠোঁটদুটির ভিতর অভ্যন্তরের নরম অঞ্চলে ঢুকে যায়, যোনিগহ্বরে এসে চাপ দেয়| সেখানে চুলকে দিতে দিতে কাকুতি করেন বরেনবাবু|
-“আঃ, আউচ” কাতরে উঠে তন্নিষ্ঠা স্পর্শকাতর অঞ্চলে চুলকানির স্পর্শে, “নাহ” সে গুমরিয়ে ওঠে|
-“উমমমমম!” বরেনবাবু এবার ওর প্যান্টিরও ভিতরে হাত ঢুকিয়ে চেপে ধরেন সমস্ত নরম নির্লোম যোনি| অবাক হয়ে তিনি জিজ্ঞাসা করেন “তুমি শেভ করো সুন্দরী? বাঃ!”
-“আঃ! ছিঃ! হাত সরান আঃ!” নিজেকে ছিটকিয়ে সরিয়ে নেবার বিফল চেষ্টা করে বন্দিনী তন্নিষ্ঠা|
-“উমমম” অষ্টাদশীর নরম নগ্ন যোনি চটকে চটকে কচলে মাখেন হাতে বরেনবাবু| আশ মিটিয়ে স্পর্শসুখ উপভোগ করেন| তারপর যোনির খাতের ভিতর তর্জনী ঢুকিয়ে যোনিগহ্বরটি খুঁজে পেয়ে তাতে চাপ দিয়ে ঢোকাবার চেষ্টা করেন, কিন্তু তন্নিষ্ঠার দুটো পা একসাথে বাঁধা থাকার এবং ও দু-হাঁটু জোর করে চেপে রাখার ফলে ঢোকাতে পারেন না| Jomidarer Meye-3 Bangla Choti
-“আঃ, ছারুন, উন্ঘ..” তন্নিষ্ঠা মোচড়ের পর মোচড় দিয়ে চলেছে শৃঙ্খলিত শরীরে, ওর স্তনদুটি যেন ব্লাউজ ফুঁড়ে ঠাটিয়ে উঠছে অত্যন্ত স্পষ্ট আদল নিয়ে, নরম নিতম্বের মাঝে দলিত হচ্ছে বরেনবাবুর খাড়া পুরুষাঙ্গ…
-“উমমমম, এখানটা কি গরম তোমার রূপসী!” বরেনবাবু তন্নিষ্ঠার যোনিগহ্বরের চারপাশে নরম, মসৃন স্পর্শকাতর চামড়ায় আঙ্গুল ডলতে ডলতে বলেন, ওর গালে চপ করে একটি চুমু খান|
-“আঃ,.. “ তন্নিষ্ঠা যতটা পারে মুখ সরিয়ে রাখার চেষ্টা করে|
-“জ্যেঠুকে একটা হাম্মি দাও!” আদুরে স্বরে বলে বরেন পাল তন্নিষ্ঠার ঘাড়ে নাক ঘষেন –‘উমমমম”
-“আঃ!.. “ অসহায়ভাবে ঘাড় সরাতে চায় তন্নিষ্ঠা, তারপর হঠাত মুখ ফিরিয়ে এনে ঝাঁঝের সাথে বলে “আপনি কি চান? কি দিলে মুক্তি দেবেন আমায়? টাকা?”
-“হাহা!” হেসে ওঠেন বরেন পাল ওর যোনি-অভ্যন্তরের নরম পিচ্ছিল মাংস আঙ্গুল দিয়ে ডলতে ডলতে “কোনো টাকাই তোমায় বাঁচাতে পারবে না রূপসী!” তালু দিয়ে নরম-উত্তপ্ত যোনিদেশ চটকান তিনি, আঙ্গুলটি আরো ভিতরে প্রবেশ করাতে চেষ্টা করে আঁটো যোনিগহ্বরের উপরিভাগে কোঁটটি খুঁজে পেয়ে তাতে চাপ দেন|
-“আহঃ!” এবার শিহরিয়ে ওঠে তন্নিষ্ঠা তার নিতম্ব কেঁপে ওঠে বরেনবাবুর পুরুষাঙ্গের উপর, “তা’লে কি?” তার গলার ঝাঁঝ হঠাতই প্রশমিত…
-“উম, বলব” তিনি তন্নিষ্ঠার কোঁটটিতে চাপ দিতে দিতে বলেন “তার আগে জ্যেঠুর ঠোঁটে একটা চুমু দাও!”
-“উন্ম্হ..” ঠোঁট কামড়ে কঁকিয়ে ওঠে তন্নিষ্ঠা| কিন্তু তার গলার স্বর এখন উত্তপ্ত, বাধ্য হয়ে সে ঠোঁট বাড়িয়ে চুমু খায় দায়সারাভাবে বরেনবাবুর ঠোঁটে, ওঁর গোঁফে নাক ঘষে যায় তার|
-“উম্ম, লক্ষ্মী মেয়ে! তা কি বলব যেন?” তিনি তন্নিষ্ঠার যোনি চটকিয়ে কোঁটটি বুড়ো আঙ্গুলে চেপে রগড়াতে শুরু করেন গোল গোল করে…
-“আহ্হ্হঃ!” তন্নিষ্ঠা শীত্কার করে ওঠে এবার… এবং সঙ্গে সঙ্গেই নিজের ভুল বুঝতে পেরে জোরে ঠোঁট কামড়িয়ে ধরে, “মমঃ” কিন্তু তার শরীর সারা দিচ্ছে অন্যভাবে..
-“কি হলো?”
-“প্লিজ কি করছেন, ছারুন..” তন্নিষ্ঠার গলার স্বর কেঁপে ওঠে|
-“হাহা” বরেনবাবু অনুভব করেন তাঁর আঙ্গুল চটচটে রসে সামান্য ভিজে ওঠা.. “রূপসী আমার হাতের মধ্যে হিসি করছ! ইশশ.. ঠিক আছে থামছি|” তিনি তন্নিষ্ঠার কোঁট কচলানো বন্ধ করেন, কিন্তু হাত সরান না|
-“আহঃ!” গলায় হতাশা চেপে রাখতে পারে না বন্দিনী তন্নিষ্ঠা| দাঁতে দাঁত চাপে সে…. তারপর বেশ কিছুক্ষণ পরে, শেষপর্যন্ত সে নিজেই নিতম্ব চালনা করে বরেনবাবুর হাতে নিজের যোনি ঘষার চেষ্টা করে… অনুভব করে তার নিতম্বের নিচে ওঁর লিঙ্গের দলন| চোখ বুজে ফেলে সে এহেন আত্মনিপীড়নে|